ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে পরিবহনের চাপ নেই!

আগামীকাল শনিবার পবিত্র ঈদুল ফিতর। তাইতো ঈদ যাত্রার শেষ দিন ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইলের অংশে অতিরিক্ত পরিবহনের চাপ দেখা দিয়েছে। তবে এবারের মহাসড়কে ঈদযাত্রায় যানজটের সৃষ্টি হয়নি। ঈদযাত্রায় চতুর্থ দিনেও ব্যস্ততম এই মহাসড়কে ভোগান্তি ছাড়াই নির্বিঘ্নে ঘরমুখো মানুষ যাতায়াত করতে পারছেন। এছাড়া মহাসড়কে যানজট নিরসনে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রায় ১২শ’ সদস্য কাজ করছেন।

সরেজমিনে শুক্রবার বিভিন্ন স্থানে ঘুরে দেখা যায়, মহাসড়কে অতিরিক্ত পরিবহনের চাপ রয়েছে। এ কারণে পরিবহনে ধীরগতি থাকলেও নেই যানজট। মহাসড়কে যাত্রীদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বাসের পাশাপাশি ট্রাক, পিকআপের ছাদে করেও মহাসড়ক পাড়ি দিচ্ছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবারের চেয়ে আজ শুক্রবার মহাসড়কে যানবাহনের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। কিন্তু কোথায় দীর্ঘ কিংবা স্থায়ী যানজট সৃষ্টি হয়নি। মহাসড়কে জেলা পুলিশ, ট্রাফিক পুলিশ এবং হাইওয়ে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করছে। যানজট নিরসনে মহাসড়কের টাঙ্গাইল অংশে চার সেক্টরে ভাগ করা হয়েছে। অন্যদিকে প্রতি দুই কিলোমিটার সড়কে একটি করে মোটরসাইকেল ভ্রাম্যমাণ পুলিশ দল রয়েছে। কোথাও যানজট শুরু হলে তারা দ্রুত সেখানে পৌঁছে ব্যবস্থা নিতে পারবে। এ ছাড়া যানজট নিরসনে ৬টি স্থানে আইপি ক্যামেরাও রয়েছে।

Tangail-Janjot-4

ঢাকা খেকে ছেড়ে আসা বগুড়াগামী একতা পরিবহনের বাসচালক রহিম মিয়া জানান, এ মহাসড়কে বছরের অন্যান্য দিনের তুলনায় অনেকটাই ভোগান্তিমুক্ত ও স্বাভাবিক যাতায়াত করা যাচ্ছে। সড়কে গাড়ির চাপ বেশি থাকায় কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হলেও এ বছর প্রশাসনিক তৎপরতা প্রশংসনীয়। ঈদযাত্রার পরও এমন প্রশাসনিক তৎপরতা থাকলে এ মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখা সম্ভব হবে।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোশারফ হোসেন জানান, আজ মহাসড়কে যানবাহনের চাপ রয়েছে। কিন্তু যানজটের সৃষ্টি হয়নি। ঘরমুখো মানুষ নির্বিঘ্নেই যেতে পারছেন।

এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের সার্জেন্ট আজিজুর রহিম তালুকদার জানান, যানজট নিরসনে পুলিশ নিরলসভাবে কাজ করছে। ঈদ যাত্রার শেষ দিনে মহাসড়কে চাপ রয়েছে, তবে যানজট সৃষ্টি হয়নি।

টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) শরীফুল হক জানান, মহাসড়কের টাঙ্গাইলের অংশে কোথাও যানজটের সৃষ্টি হয়নি। নির্বিঘ্নে মানুষ বাড়ি যেতে পারছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় এ মহাসড়ক দিয়ে ৩০ হাজারের ওপরে গাড়ি বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে পার হয়েছে। যানজট নিরসনে পুলিশ সার্বক্ষণিক নিরলসভাবে কাজ করছে। আশা করছি মহাসড়কে যানজটের সৃষ্টি হবে না।

এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কুমার রায় বলেন, যানজট নিরসনে প্রতি দুই কিলোমিটার সড়কে একটি করে মোটরসাইকেল ভ্রাম্যমাণ পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। কোথাও যানজট শুরু হলে তারা দ্রুত সেখানে পৌঁছে ব্যবস্থা নিতে পারবে। মহাসড়কে এক হাজার পুলিশ ও ১৯০ জন আনসার মোতায়েন করা হয়েছে। ঘরমুখো মানুষ যাতে নির্বিঘ্নে গন্তব্যে পৌঁছতে পারে সেজন্য টাঙ্গাইল পুলিশ প্রশাসন সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। রাতেও এ তৎপরতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

Leave a Reply

Top