সংসদ ভবন ও হাতিরঝিল-সহ ঢাকার বিনোদন কেন্দ্রে ভিড়

ঈদ মানেই আনন্দ। আর এ আনন্দে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানের বিনোদন কেন্দ্রগুলো মেতে উঠেছিল মিলনের উৎসবে। ফাঁকা ঢাকার বিভিন্ন পার্ক, সিনেমা হল, সাফারি পার্ক ও চিড়িয়াখানা ছিল দর্শকে পরিপূর্ণ। এছাড়া চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত, ফয়’স লেক, খুলনার বিভিন্ন পার্ক ও বিনোদন কেন্দ্র, রাজশাহীর বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্র, মেহেরপুরের মুজিবনগর স্মৃতি কমপ্লেক্স, বগুড়ার শেরপুরের সেটকম এগ্রো পার্ক, কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম এবং সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার বিভিন্ন বিনোদন কেন্দ্রে মানুষের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

রাজধানীর শ্যামলীর শিশুমেলা শুক্র ও শনিবার ছিল মুখরিত। সকাল থেকেই শিশুমেলায় ছিল শিশুদের ভিড়। হাতিরঝিলে ঈদের দিন বিকাল থেকে তিল ধারণের জায়গা ছিল না। প্রশস্ত ও দীর্ঘ হওয়ায় খোলামেলাভাবে ঘুরতে পেরেছে ঢাকার মানুষ। এখানে শিশুদের চেয়ে তরুণ-তরুণীদের ভিড় ছিল বেশি। বিজয় সরণির বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটারেও ছিল উপচেপড়া ভিড়। ঈদের ছুটিতে থিয়েটার উপভোগ করতে সেখানে ভিড় জমিয়েছেন দর্শনার্থীরা। ঈদের দিন থেকে দর্শনার্থীর জন্য পাঁচ দিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা রয়েছে শাহবাগের শিশুপার্ক। শাহবাগের জাতীয় জাদুঘর ঈদের দিন বন্ধ থাকলেও পর দিন থেকে খোলা ছিল। ঈদ উপলক্ষে জাতীয় জাদুঘর ও জাদুঘরের অধীনস্থ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের স্বাধীনতা জাদুঘরে ঈদের পরের দুই দিন বিনামূল্যে দেখানো হয় দুইটি চলচ্চিত্র। ঢাকার মিরপুর চিড়িয়াখানা ঈদের দিন সকাল ৮টা থেকেই দর্শনার্থীর জন্য খোলা ছিল। ঢাকার অদূরে ফ্যান্টাসি কিংডম ঈদ উপলক্ষে ১০ দিনের বিশেষ সময়সূচি গ্রহণ করেছে। নন্দন পার্ক ঈদের দিন দুপুর ১২টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা ছিল। ঈদের ছুটিতে পুরান ঢাকার ওয়ারীর বলধা গার্ডেন, কোতোয়ালির আহসান মঞ্জিল, সায়েদাবাদের ওয়ান্ডারল্যান্ডও ছিল দর্শকপূর্ণ। বিমান বাহিনীর বিভিন্ন পুরনো যুদ্ধবিমান, হেলিকপ্টার, রাডারসহ বিভিন্ন অস্ত্র ও সরঞ্জাম দিয়ে সাজানো হয়েছে বিমান বাহিনী জাদুঘর। দর্শনার্থীদের আরও বেশি বিনোদনের জন্য এখানে রয়েছে দোলনা, চরকা, মিনি ট্রেনের মতো মজার সব রাইড।

Leave a Reply

Top