নওশাবা’র বোধোদয় হোক!

নিরাপদ সড়কের দাবিতে গত মাসের শেষ দিকে চলমান আন্দোলনে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটানোই নওশাবার উদ্দেশ্য ছিল বলে র‍্যাবের ধারনা। নওশাবা স্বীকারোক্তিতে জানিয়েছেন, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে লাইভে আসার আগে তিনি ঘটনাস্থলে ছিলেন না। তিনি জিগাতলা নিয়ে কথা বলার সময় উত্তরায় ছিলেন। রুদ্র নামের এক ছেলে তাঁকে লাইভ করতে বলেন। তাই তিনি উত্তরা থেকে লাইভ করেছেন।

ফেসবুকে গুজব ছাড়ানোর অভিযোগে গভীর রাতে রাজধানীর উত্তরা এলাকা থেকে নওশাবাকে আটক করে র‌্যাব। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গুজব ছাড়ানোর কথা স্বীকার করেন তিনি। পরে র‌্যাব বাদী হয়ে উত্তরা পশ্চিম থানায় তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইনে এ মামলা করে নওশাবাকে থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করে।

গেপ্তারের পর দুসপ্তাহ জেল ও দু-দফায় রিমান্ড শেষে আদালতে ৫ হাজার টাকার স্ট্যাম্পে মুচলেকা দেবার পর ঈদের ঠিক আগের দিন সন্ধ্যায় নওশাবা জামিনে মুক্তি পান।

আমরা আশা করি, তিনি ভবিষ্যতে আর এমন কোন অভিনয় করবেন না, যা নগরবাসীর জন্য অসস্থির কারণ হয়ে দাঁড়ায়।

আমরা পোস্টম্যান পরিবারের পক্ষ থেকে তার দ্রুত মানসিক ও শাররীক সুস্থতা কামনা করছি।

 

Leave a Reply

Top